ইরানের হামলায় কোনো হতাহত হয়নি : দাবি যুক্তরাষ্ট্রের

প্রকাশিত: ৯:২০ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৮, ২০২০

ইরানের হামলায় কোনো হতাহত হয়নি : দাবি যুক্তরাষ্ট্রের

সোনালী সিলেট ডেস্ক
ইরাকে যুক্তরাষ্ট্রের দুটি বিমানঘাঁটিতে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় কোনো হতাহত হয়নি বলে দাবি করছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন সামরিক কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে সিএনএন এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করে, বুধবার ভোরে মার্কিন সেনা ঘাটিতেঁ অন্তত ২২টি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়ে ৮০ জন ‘মার্কিন সন্ত্রাসীকে’ হত্যার দাবি করছে ইরান। কিন্তু ওই হামলায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি বলে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষথেকে দাবি করা হচ্ছে।

 

মার্কিন এক কর্মকর্তা সংবাদমাধ্যম সিএনএন-কে বলেন, হামলার পর তাদের কাছে যাওয়া প্রাথমিক প্রতিবেদন অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রের কারও হতাহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি। তবে ইরানের প্রায় দুই ডজন ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় কি পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা নিরুপণ করার কাজ চলছে ।

 

গত শুক্রবার বাগদাদ বিমানবন্দরে ড্রোন থেকে ছোড়া মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ইরানের কুদস ফোর্সের কমান্ডার সোলেইমানি নিহত হওয়ার প্রেক্ষিতে প্রতিশোধের এই হামলা চালিয়েছে ইরান। তারা বলছে সোলেইমানি হত্যার বদলা নিতেই এই হামলা। তারা কোনো যুদ্ধ চায় না। আর যুক্তরাষ্ট্র হামলা করলে যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখণ্ডে আঘাত করা হবে।

 

ভোরের হামলার পর ইরানের রাষ্ট্রায়ত্ত এক টেলিভিশন চ্যানেলের প্রতিবেদনে বলা হয় ইরাকে যুক্তরাষ্ট্রের দুটি সামরিক বিমানঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় অন্তত ৮০ জন ‘মার্কিন সন্ত্রাসী’ নিহত হয়েছে। স্থানীয় সময় ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ইরাকের পশ্চিমাঞ্চলের আইন আল আসাদ এবং কুর্দিস্তানের ইরবিলের মার্কিন ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে ইরান।

 

এদিকে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর ইরাকের নিরাপত্তা বাহিনীর এক যৌথ কমান্ড বিবৃতিতে জানিয়েছে, সব ক্ষেপণাস্ত্র মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক জোটের ঘাঁটিতে আঘাত হেনেছে। ভোরের ওই হামলায় তাদের কোনো সৈন্য হতাহত হয়নি। হামলা শুরু হয় স্থানীয় সময় রাত পৌনে ২টায়। হামলা চলে রাত পৌনে ৩টা পর্যন্ত।

 

হামলার পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘সব ঠিক আছে, ইরাকে দুটি বিমানঘাঁটিতে ইরান থেকে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হয়েছে। এখন ক্ষয়ক্ষতি এবং হতাহতের তথ্য মূল্যায়ন করা হচ্ছে। যা হয়েছে, ভালো হয়েছে! আমাদের কাছে সবচেয়ে ক্ষমতাধর এবং সুসজ্জিত সামরিক বাহিনী রয়েছে। বিশ্বের যেকোনও স্থানে তারা রয়েছে।’

সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
0Shares
সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম