পুলিশের নিরাপত্তা বলয় রমজান ও ঈদকে ঘিরে

প্রকাশিত: ৮:১২ পূর্বাহ্ণ, মে ২৬, ২০১৯

পুলিশের নিরাপত্তা বলয় রমজান ও ঈদকে ঘিরে

সোনালী সিলেট ডেস্ক ::: রমজান ও ঈদুল ফিতরকে ঘিরে সিলেট নগরীজুড়ে নিরাপত্তা বলয় গড়ে তুলেছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। ঈদের কেনাকাটা থেকে শুরু করে নগরীর সার্বিক আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রাখতে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ (এসএমপি)।

এসএমপি সূত্রে জানা যায়, ঈদের কেনাকাটাকে নির্বিঘ্ন ও নিরাপদ করতে নগরজুড়ে নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। নগরীর বিপণী বিতান, গুরুত্বপূর্ণ মোড় আর সড়কগুলো বসানো হয়েছে বিশেষ টহল। ঈদের কেনাকাটা নির্বিঘ্নে করতে প্রতিটি বিপণি বিতানে মোতায়েন করা হয়েছে পুলিশ। এর পাশাপাশি নগরজুড়ে মোতায়েন রয়েছে বাড়তি পুলিশ সদস্য।

এছাড়াও ঈদ এলেই নগরীতে সক্রিয় হয়ে উঠে একটি মৌসুমি অপরাধী চক্র। তার চুরি-ছিনতাইসহ বিভিন্ন রকমের অপরাধে জড়িয়ে পড়ে ঈদের সময়। এমন চুরি-ছিনতাইসহ ঠেকানোর পাশাপাশি নরগবাসী যেন নির্বিঘ্নে কেনাকাটা করতে পারেন সে জন্য বিপনীবিতানগুলোতে দেয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা। নারীদের যাতে হয়রানির শিকার হতে না হয় এজন্য সকল বিপণী বিতানেই রয়েছেন নারী পুলিশ সদস্য।

ইতোমধ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুল পরিমাণ সদস্য এ কাজে নিয়োজিত করা হয়েছে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। ইতিমধ্যে অধিকাংশ সদস্যই মাঠে সক্রিয় রয়েছেন বলেও জানান পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

ঈদ মৌসুমে সিলেট নগরীর নিরাপত্তা বিষয়ে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) জেদান আল মুসা সিলেটটুডে টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ঈদকে ঘিরে প্রতি বছরের মতো এবারও বিশেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে টহল ও গোয়েন্দা নজরদারি। এছাড়াও রয়েছে বিশেষ টহলে ব্যবস্থা। ঈদ মার্কেটের কেনাকাটা ও নগরবাসীর ঘরে ফেরা নিরাপদ করতেই এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

তিনি জানান, ঈদকে সামনে রেখে ও ঈদের কেনাকাটা নির্বিঘ্নে করতে নগরীর সকল মার্কেট ও শপিংমল কেন্দ্রিক নিরাপত্তার পাশাপাশি টহল ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। এছাড়াও সাদা পোশাকে পুলিশ সদস্যরা মাঠে রয়েছেন।

ঈদ এলেই নগরীতে সক্রিয় হয়ে উঠে ছিনতাইকারী চক্রসহ অন্য অপরাধীরা। ছিনতাইয়ের শিকার হন কেনাকাটা করতে বের হওয়া সাধারণ ক্রেতারা। এবার এমন পরিস্থিতি এড়াতে আগেভাগেই প্রস্তুতি নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের এ কর্মকর্তা বলেন, নগরবাসীর সহযোগিতায় এসএমপির গৃহীত নিরাপত্তা ব্যবস্থায় হিসেবে মার্কেট ও শপিংমলের প্রতিটি অংশ সিসিটিভি ক্যামেরার আওতাভুক্ত করা হয়েছে। ঈদ কেনাকাটায় বড় অঙ্কের টাকা আনা-নেয়ার জন্য রয়েছে পুলিশের ‘মানি এস্কর্ট’ ব্যবস্থা।

তিনি আরো বলেন, ব্যাংকগুলোকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। যাতে মানুষ নির্বিঘ্ন ও নিরাপদে টাকা-পয়সা উত্তোলন করতে পারে।

মার্কেটের নিরাপত্তা নিশ্চিতে সার্বক্ষণিক পাহারায় নারী পুলিশের বিশেষ দল থাকছে উল্লেখ করে জেদান আল মুসা বলেন, মার্কেটে ইভটিজিং প্রতিরোধে কাজ করছে বিশেষ ইউনিট। মার্কেটের সামনে যানজট এড়াতে ট্রাফিক পুলিশের পাশাপাশি কাজ করছে কমিউনিটি পুলিশ ও মার্কেট কর্তৃপক্ষ কর্তৃক নিয়োজিত স্বেচ্ছাসেবক দল। এছাড়াও নগরীর কুমারপাড়া ও নয়াসড়ক এলাকায় নেয়া হয়ে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

তিনি আরো বলেন, রাতে ঈদ কেনাকাটার পর নিরাপদে বাড়ি ফেরা নিশ্চিত করতে রয়েছে টহল পুলিশের একাধিক দল। শপিংমলের অধিক জনসমাগমস্থলে পকেটমার, ছিনতাইকারী ও অজ্ঞান/মলম পার্টি প্রতিরোধে ইউনিফর্ম পুলিশের পাশাপাশি কাজ করছে সাদা পোশাকের পুলিশ। এছাড়াও নগরীর প্রত্যেকটি গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে বসানো হয়েছে তল্লাশি চৌকি।

ব্যবসায়ীরা যাতে নিরাপদে ব্যবসা পরিচালনা করতে পারেন আর ক্রেতারা নির্বিঘ্নে কেনাকাটা করতে পারেন সে জন্য নিরাপত্তা জোরদার করেছে। বড় বড় ফ্যাশন হাউস ও মার্কেটগুলোর সামনে নারী ও পুরুষ পুলিশ সদস্যরা নিরাপত্তা কাজে নিয়োজিত রয়েছেন।

এদিকে ঈদ উপলক্ষে নগরীর একটা অংশ ফাঁকা হয়ে যায়। বিশেষ করে আবাসিক এলাকাগুলোর বেশির ভাগ চাকরিজীবী পরিবারই সেসময় সিলেট ছেড়ে যায়। আর এমন সুযোগে নগরীতে একটি মৌসুমি অপরাধী চক্র সক্রিয় হয়ে ওঠে। আর এদের প্রধান টার্গেট থাকে ফাঁকা হয়ে যাওয়া আবাসিক এলাকার বাসাবাড়িগুলো। তাই এবারের ঈদে ফাঁকা নগরীকে সুরক্ষা দিতে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ (এসএমপি) গড়ে তুলেছে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা বলয়। বাড়ানো হয়ে পুলিশি টহল।

সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
0Shares
সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  • 0
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম