চা-বাগানে ভোটারদের দীর্ঘ সারি

প্রকাশিত: ৮:৫২ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১৮, ২০১৯

চা-বাগান অধ্যুষিত মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে শহরের ভোট কেন্দ্রগুলোতে ভিড় নেই। তবে বাগানের কেন্দ্রগুলোতে চিত্রটা ভিন্ন। সকাল থেকে সারিবদ্ধভাবে লাইনে দাড়িয়ে ভোট দিচ্ছেন চা শ্রমিকরা।

সোমবার (১৮ মার্চ) সকাল থেকে শহর ও চা-বাগানের বিভিন্ন কেন্দ্র ঘুরে এ চিত্র দেখা যায়।

ভাড়াউড়া চা বাগান ও আমরাইল চা বাগানে গিয়ে দেখা যায় ভোটারদের সারি। ভোটকে কেন্দ্র করে চা-বাগানের শ্রমিকদের মধ্যে উৎসবের ভাব বিরাজ করে। এ নির্বাচনও তার ব্যতিক্রম নয়।

নারী চা শ্রমিক সাধনা কুর্মী বলেন, আমরা সবসময় সকাল সকাল ভোট দেই। তাই এবারও সকালেই ভোট দিতে এসেছি।

শহরের বেশিরভাগ কেন্দ্রের সামনেই প্রার্থী ও কর্মী-সমর্থক ছাড়া ভোটার নেই বললেই চলে।

সকাল সাড়ে ৯টার দিকে শ্রীমঙ্গল উদয়ন উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, কোনো ভোটার নেই। এটি শ্রীমঙ্গল পৌরসভার একটি কেন্দ্র। এই কেন্দ্রের সামনে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী এনাম হোসেন চৌধুরীর বই প্রতীকের ও তালা প্রতীকের ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী সাগর হাজরার কর্মী-সমর্থকরা দাঁড়িয়ে আছেন। সবার গলায় প্রার্থীদের প্রতীকের কার্ড ঝোলানো।

কেন্দ্র থেকে খানিকটা দূরে প্রার্থীর এজেন্টরা ভোটারদের স্লিপ নিয়ে অপেক্ষা করছেন। তবে সেখানে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে কোনো ভোটারকে স্লিপ নিতে দেখা যায়নি।

ভিক্টোরিয়া উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে মোট ভোটার তিন হাজার ৮ শত ৯৩ জন। পৌনে ৯টার দিকে দুজন নারী ভোটারকে ভোট কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেখা গেছে।

এরপর সকাল ১০টার দিকে শ্রীমঙ্গল উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা গেছে, স্কুল মাঠ একেবারেই ফাঁকা। এই কেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা ২ হাজার ৩২৮।

তালা প্রতীকের কার্ড গলায় ঝোলানো রজত বলেন, রাতে বৃষ্টির জন্য মানুষ সকালে আসেনি। দুই-একজন করে এসেছেন।

ভোট সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, বেলা বাড়লে ভোটকেন্দ্রে ভোটার সংখ্যাও বাড়বে।

সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
0Shares
সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম