ছাতকের সিংচাপইড় ইউপি: নির্বাচন স্থগিতাদেশের পরও বিভ্রান্তি কাটছে না

প্রকাশিত: ৯:৫৮ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০১৯

ছাতকের সিংচাপইড় ইউপি: নির্বাচন স্থগিতাদেশের পরও বিভ্রান্তি কাটছে না

সোনালী সিলেট ডেস্ক :::সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার সিংচাপইড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচন আগামী বৃহস্পতিবার। মাঠে রয়েছেন প্রার্থীরা। ইতোমধ্যে ৬ মাসের জন্য নির্বাচন স্থগিত করেছেন উচ্চ আদালত।

আদালতের স্থগিতাদেশের কপি পাওয়ার পর এখনো নির্বাচন স্থগিতের ব্যাপারে কোনো নির্দেশনা দিতে পারেনি স্থানীয় উপজেলা নির্বাচন অফিস। আদেশের নথি উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রেরণের পর সিদ্ধান্ত না আসায় ভোট গ্রহনের ব্যাপারে কোনো নির্দেশনা দিতে না পারায় ভোট আয়োজন নিয়ে চলছে বিভ্রান্তি। নির্বাচন হবে না-কি স্থগিত করা হবে তা জানেন না প্রার্থী ও ভোটাররা। স্থগিতাদেশের কপি সোমবার উপজেলা নির্বাচন কমিশনের কার্যালয়ে পৌছে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু কোনো সীদ্ধান্ত জানানো হয়নি প্রার্থীদের। ফলে নির্বাচন হবে মনে করে প্রচারণা চালাচ্ছেন প্রার্থীরা।

মঙ্গলবার বিকাল কোন সিদ্ধান্ত দিতে পারেননি উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক। তিনি জানিয়েছেন, নির্বাচন স্থগিতের একটি আদেশ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ে এবং প্রধান নির্বাচন কমিশনে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে এখনও কোন সিদ্ধান্তের আদেশ পাইনি। এদিকে মঙ্গলবার সকালে প্রধান নির্বাচন অফিস ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ে আদেশের কপি পৌছেছে বলে জানা গেছে।

সম্প্রতি বরখাস্থ হওয়া ওই ইউপি চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মো. সাহেলের দায়ের করা একটি রিটের ওপর শুনানি শেষে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ উপ নির্বাচন ৬ মাসের জন্য স্থগিত করেন। সার্টিফাইড কপি তুলে সোমবার দুপুরে আদেশের কপি ছাতক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বরাবরে হাতে হাতে পৌছে দেন সাহাব উদ্দিন মো. সাহেলের পক্ষে শাহ আলম বাসিত।

আদেশের কপি পাওয়ার পর উপজেলা নির্বাচন অফিস থেকে উর্ধতন কর্তৃপেক্ষর কাছে প্রেরণ করা হলেও কোনো নির্দেশনা না আসায় ভোট স্থগিতের বিষয়ে প্রার্থীদের জানাতে পারছেনা উপজেলা নির্বাচন অফিস। ফলে ভোট হবে জেনেই প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন প্রার্থীরা।

তারা জানান, ভোট গ্রহনের দিনক্ষণ ঘনিয়ে আসায় প্রার্থী ও ভোটারদের মধ্যে বিভ্রান্তিও চলছে। তবে স্থগিতের ব্যাপারে এখনো কোনো নির্দশনা তাদের জানানো হয়নি বলে একাধিক প্রার্থী জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে রিটকারী ইউপি চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন সাহেল বলেন, মঙ্গলবার সকালে প্রধান নির্বাচন অফিস ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় আদেশের নথি গ্রহন করেছে। নথি গ্রহনের পর কোনো নির্দেশনা হলো কি না জানা নেই। তিনি জানান, উচ্চ আদালতের আদেশ পাওয়ার পর নির্বাচন স্থগিত না করে ভোট গ্রহন করলে আদালত অবমানায় পড়বেন সংশ্লিষ্টরা।

প্রসঙ্গত, ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ নিয়ে ছাতক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কক্ষে অবস্থান করে ফেইসবুকে লাইভ স¤প্রচার ও একটি মামলায় সাজার অভিযোগে সাহাব উদ্দিন সাহেলকে গত বছরের ১৫ জুলাই চেয়ারম্যান পদ থেকে প্রথমে সাময়িক পরে স্থায়ীভাবে বহিস্কার করে স্থানীয় সরকার বিভাগ। এ বহিস্কারের আদেশ চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে রিট পিটিশন (১০৪৮৫/১৮) করেন সাহেল। রিটের পর তিনি আবারো স্বপদে ফিরেন। পরবর্তীতে ওই রিট ব্যাকেট করে রিটের নিস্পত্তির জন্য ৮সপ্তাহের সময় নেয় স্থানীয় সরকার বিভাগ। কিন্তু সময়ের মধ্যে কোনো জবাব না দেয়ায় আদালত কর্তৃক একটি রুলও জারি করা হয়। রুল এর জবাব কিংবা নিস্পত্তি না করে নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষনা করায় ৬ মাসের জন্য তা স্থগিত করেন আদালত।

সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
0Shares
সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম