ইউপি নির্বাচন : বিয়ানীবাজারে জাপা নেতার এ কেমন প্রচারণা?

প্রকাশিত: ৫:৩১ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৩, ২০২১

ইউপি নির্বাচন : বিয়ানীবাজারে জাপা নেতার এ কেমন প্রচারণা?

নিজস্ব প্রতিবেদক
তফসিল ঘোষণার খবর নেই, অথচ প্রতীক ব্যবহার করে ইউপি নির্বাচনের ফেস্টুন সাঁটিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন বিয়ানীবাজারের শেওলা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী জাতীয় পার্টির এক নেতা। ইতিমধ্যে তিনি নাকি জাতীয় পার্টি কর্তৃক চয়ারম্যান পদে মনোনীতও হয়ে গেছেন। বিষয়টি পুরোপুরি হাস্যকর হলেও তাতে কোনো ভ্রæক্ষেপ নাই ওই প্রার্থীর। তিনি ‘আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৪নং শেওলা ইউনিয়নের জাতীয় পার্টির মনোনীত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ফয়জুর রহমান (এসনু) মিয়াকে লাঙ্গল মার্কায় আপনাদের মহামূল্যবান ভোট দিয়ে ইউনিয়বাসীর সেবা করার সুযোগ দিন’ লেখা সম্বলিত ফেস্টুন সাঁটিয়ে দিব্যি প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

 

জানা যায়, ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন সামনে রেখে বিয়ানীবাজার উপজেলার শেওলা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী জাতীয় পার্টি নেতা ফয়জুর রহমান (এসনু) মিয়া। নির্বাচনী প্রচারণায় তিনি বিয়ানীবাজার উপজেলার প্রশাসনিক কার্যালয় চত্বরে লাঙ্গল প্রতীক ব্যবহার করে ফেস্টুন সাঁটিয়েছেন। তফশিল ঘোষণার আগে এ রকম পোস্টার ও ফেস্টুন সাধারণ ভোটারদের মধ্যে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করছে বলে স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন। এতে সচেতন বিভিন্ন মহলে আলোচনা-সমালোচনার জন্ম নিয়েছে।

 

সরেজমিনে বিয়ানীবাজার উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণের মূল চত্বরের দুই পাশের একটি গাছ ও একটি ল্যাম্পপোস্টের মধ্যে সাঁটানো রয়েছে দুটি ফেস্টুন। দুটো ফেস্টুনেই লেখা রয়েছে ‘আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৪নং শেওলা ইউনিয়নের জাতীয় পার্টির মনোনীত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ফয়জুর রহমান (এসনু) মিয়াকে লাঙ্গল মার্কায় আপনাদের মহামূল্যবান ভোট দিয়ে ইউনিয়বাসীর সেবা করার সুযোগ দিন’।

 

শেওলা ইউনিয়নের ভোটার সাইদুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, নির্বাচনে প্রার্থিতা ঘোষণা করতে অনেকেই কৌশল অবলম্বন করে থাকেন। কিন্তু নির্বাচনের তফশিল ঘোষণার আগেই প্রতীক দিয়ে প্রচারণা চালানোর কারণে সাধারণ ভোটারেরা বিভ্রান্তিতে পড়েছে। তফশিল ঘোষণার আগে প্রতীক দিয়ে প্রচারণা চালানো এসব প্রার্থীদের বিরুদ্ধে আইনি হস্তক্ষেপ জরুরি। নতুন পরবর্তীতে অন্য প্রার্থীরাও এরকম কাজ করতে পারে।

 

বিয়ানীবাজার প্রেসক্লাব সভাপতি সুয়াইবুর রহমান স্বপন বলেন, নির্বাচনের তফশিল ঘোষণার আগেই প্রতীক দিয়ে প্রচারণা চালানো এবং গাছের মধ্যে পেরেক দিয়ে ব্যানার-ফেস্টুন সাঁটানো- তাও আবার উপজেলার প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের চোখের সামনেই! এসব ব্যাপারে প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের দায়িত্বশীল হতে হবে। তিনি অবলিম্বে এই ব্যাপারে আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহণে সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

 

দলীয় সূত্রে জানা যায়, শেওলা ইউনিয়নে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন নিয়ে গত দুই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন জাপা নেতা ফয়জুর রহমান (এসনু) মিয়া। বিগত নির্বাচনে জাতীয় প্রার্থীর অন্য কোন মনোনয়ন প্রত্যাশী না থাকায় আসন্ন ইউপি নির্বাচনেও তিনি জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশী। তৃণমূল নেতাকর্মীদের ধারণা, এবারও ফয়জুর রহমান (এসনু) মিয়া জাতীয় পার্টির দলীয় মনোনয়ন পাবেন।

 

বিয়ানীবাজার উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি আবুল হাসনাতের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে সম্প্রতি তিনি বিদেশ থেকে ফিরেছেন জানিয়ে বলেন, এসব তার জানা নেই। তবুও তিনি খোঁজ নিয়ে দেখবেন।

 

উপজেলা জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল ইসলাম লুকু বলেন, দলের একক প্রার্থী হলেও তফশিল ঘোষণার আগে প্রতীক নিয়ে প্রচার প্রচারণা করা নির্বাচনী বিধি লঙ্ঘনের সামিল। উপজেলা জাতীয় পার্টির নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনা করে এই বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

এ ব্যাপারে বিয়ানীবাজার উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সৈয়দ কামাল হোসেন বলেন, এখনো তফসিল ঘোষণা হয়নি। তাই মনোনয়ন প্রত্যাশীরা পোস্টার সাঁটাতে পারেন। তবে গাছে পেরেক টুকে ব্যানার-ফেস্টুনে সাঁটানো ও নির্বাচনের তফশিল ঘোষণার আগেভাগেই প্রতীক দিয়ে প্রচারণা চালানো অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড। যে বা যারা এই কাজটি করেছে এটা তাদের একদম উচিত হয়নি। এ ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
0Shares
সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম