পাকিস্তানি ধারায় ফিরে যাবে: ড. আব্দুল মোমেন

প্রকাশিত: ৬:৪২ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৭, ২০১৮

পাকিস্তানি ধারায় ফিরে যাবে: ড. আব্দুল মোমেন

সোনালী সিলেট ডেস্ক ::: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে নৌকায় ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে সিলেট-১ আসনে মহাজোট মনোনীত প্রার্থী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, অন্যথায় দেশের চলমান উন্নয়ন ব্যাহত হবে এবং দেশ পাকিস্তানী ধারায় ফিরে যাবে।

তিনি রোববার দুপুরে মহান বিজয় উপলক্ষে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে এক প্রতিক্রিয়া সাংবাদিকদের একথা বলেন। ড. মোমেন রোববার নগরী ও সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে নৌকার নির্বাচনী প্রচারণায় যোগ দেন। সকালে নগরীর ১২নং ওয়ার্ডে স্থানীয় এলাকাবাসীর সাথে মতবিনিময় ও গণসংযোগ করেন, দুপুরে তারাপুর চাবাগানে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে নিহত শহীদদের স্মরণে স্থাপিত শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে স্থানীয়দের সাথে মতবিনিময় করেন, বিকেলে খোঁজারখলা এলাকায় জনসংযোগ, টিলাগড়ে বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস জোন আয়োজিত মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। পরে তিনি নগরীর টুলটিকর ইউনিয়নের বালুচর এলাকায় গণসংযোগ ও রাতে সিলেট সদর উপজেলার টুকেরবাজার এলাকায় গণসংযোগ করেন।

ড. মোমেন এসব কর্মসূচিতে আরও বলেন, আজ স্বাধীনতার ৪৮বছর পরে মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করতে হচ্ছে। তারা এখনও দেশবিরোধি নানা ষড়যন্ত্রে তৎপর রয়েছে। বিষধর সাপের মতো সুযোগ পেলেই এরা ছোঁবল মারার চেষ্টা করে। স্বাধীনতার পর তাদের দ্বারা বারবার আক্রান্ত হয়েছে বাংলাদেশ। তাই দেশপ্রেমিক জনগণকে এদের ব্যাপারে সজাগ থাকতে হবে।

মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা অর্জন বাঙালির জাতীয় জীবনের শ্রেষ্ট অর্জন উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশ আজ দু’টি ধারায় বিভক্ত। দেশের বেশিরভাগ মানুষ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী। তরুণ প্রজন্মও মহান মুক্তিযুদ্ধের মূলমন্ত্র অসাম্প্রদায়িক চেতনার বাংলাদেশ চায়।

তিনি আশা প্রকাশ করেন, ষড়যন্ত্রকারীদের ফাঁদে পা না দিয়ে দেশের মানুষকে উন্নয়ন, শান্তি ও মুক্তিযুদ্ধের প্রতীক নৌকা মার্কায় ভোট দিবেন।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু অসাম্প্রদায়িক চেতনায় একটি সুখি, সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে এদেশকে স্বাধীন করেছিলেন। আজ তাঁর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ সে লক্ষ্যে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। এই ধারাকে সমুন্নত রাখা এখন সময়ের দাবি।

যারা বাংলাদেশের উন্নয়ন চায় না, অতীতে ভিক্ষুকের জাতি হিসেবে, দুর্নীতি, জঙ্গি ও সন্ত্রাসের রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্বের কাছে উপস্থাপন করেছে, আগামী ৩০ ডিসেম্বর তাদেরকে প্রত্যাখ্যান করার আহ্বান জানান ড. মোমেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য ও সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট লুৎফুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক, সাবেক সংসদ সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরী, মহানগর সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ, সাবেক সংসদ সদস্য সৈয়দা জেবুন্নেছা হক, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও সিলেট সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক বিজিত চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নিজাম উদ্দিন, অধ্যক্ষ সুজাত আলী রফিক, এডভোকেট নাসির উদ্দিন খান, কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় নেতা শামীমা শাহরিয়ার, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিল ও মহানগর আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আজাদুর রহমান আজাদ, কাউন্সিলর আজম খান, জেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট রনজিত সরকার, জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. আরমান আহমদ শিপলু, যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগ নেতা সাইদুর রহমান জাবেদ, জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগ নেতা সাবেক চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান মানিক, সৈয়দ এপতার হোসেন পিয়ার, জুবের খান, তপন মিত্র, মাসুম বিল্লাহ চৌধুরী, বেলাল খান, ২৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তাসবির ইসলাম পিন্টু, মহানগর শ্রমিকলীগের আহ্বায়ক এম শাহরিয়ার কবির সেলিম, মহানগর কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুর রকিব বাবলু, মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক দেবাংশু দাস মিঠু, বলরাম দাস, আব্দুল ওয়াদুদ তপাদার, সৈয়দ হাফিজ আহমদ দাউদ, সাজোয়ান আহমদ, আলকাছ আহমদ, সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি পঙ্কজ পুরকায়স্থ, শাহরিয়ার আলম সামাদ, হিরণ মাহমুদ নিপু, সুজেল তালুকদার, রকিবুল হাসান জুয়েল, ফারুক মিয়া, আবু সিদ্দিক সুবেল, ময়ুর মিয়া, সেলিম আহমদ, ছাত্রলীগ নেতা কামরুল ইসলাম, সঞ্জয় চৌধুরী, বাগান এলাকার নেতৃবৃন্দের মধ্যে পংকজ কুমার গুপ্ত, ড. বনদীপ লাল দাস, অসিত বাবু, রজত কান্তি দে, চৈতন্য মোদি, সুশীল মোদি, মনোরঞ্জন রায় সমর, রাজন রায়, বিজয় কান্তি দে, আনোয়ার হোসেন লিলু, টুকেরবাজার এলাকায় নেতৃবৃন্দের মধ্যে জেলা পরিষদ সদস্য মোহাম্মদ শাহনূর, জেলা আওয়ামীলীগ নেতা এডভোকেট নূরে আলম সিরাজী, উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা শাহাব উদ্দিন লাল, মাস্টার আব্দুস শুকুর, রফিক আহমদ, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি আলতাফ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মুকিত, যুবলীগ নেতা মোয়াজ্জিন হোসেন, নুরুল হক, আলী হোসেন, ছাত্রলীগ নেতা আলামীন প্রমুখ।

সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
8Shares
সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম