জনমনে ক্ষোভ-হতাশা
সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ-ভোলাগঞ্জ বঙ্গবন্ধু মহাসড়কে ফাটল!

প্রকাশিত: ৮:৫৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৫, ২০২০

<span style='color:#C90D0D;font-size:19px;'>জনমনে ক্ষোভ-হতাশা</span> <br/> সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ-ভোলাগঞ্জ বঙ্গবন্ধু মহাসড়কে ফাটল!

মো. মঈন উদ্দিন মিলন, কোম্পানীগঞ্জ থেকে
বহুল আলোচিত ব্যস্ততম সড়ক সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ-ভোলাগঞ্জ সড়ক। নির্মাণের বছরকয়েক পরই খানাখন্দকে ভাঙাচুড়ায় পতিত হয় সড়কটি। সরকার উদ্যোগ নেয় সংস্কারের, জোড়াতালি দিয়ে বছর দু’য়েক চলার পর দীর্ঘ একযুগ করুণ অবস্থার মধ্য দিয়ে অনুপযোগী রাস্তা দিয়ে চলতে হয়েছে উত্তর সিলেটের লক্ষ্য লক্ষ্য মানুষ। পাথর পরিবহনসহ জেলা শহরে একমাত্র সরাসরি যোগাযোগের মাধ্যম এ সড়ক। যারপরনাই নিরুপায় জনসাধারণ অনেক ত্যাগতিতীক্ষা, আন্দোলন-সংগ্রাম ও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলতে হয়েছে এ সড়ক দিয়ে।

 

ফলশ্রæতিতে স্থানীয় সংসদ সদস্যসহ সরকারের কাছে বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনসহ সকলশ্রেণী পেশার মানুষ স্বারকলিপি দেওয়া থেকে শুরু করে এ সড়কটির জন্য দীর্ঘ ৫/৭ বছর যাবত ধাপে ধাপে মিছিল সমাবেশ করেছেন। বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় গুরুত্বের সাথে এসব কর্মসূচির সংবাদ প্রচারিত হলে এটাই প্রমাণ হয়, বাংলাদেশের কোথাও এরকম রাস্তার বেহাল দশার নজির নেই। এমনি এক পরিস্থিতিতে ২০১৬ সাল নাগাদ তৎকালীন যোগাযোগ মন্ত্রী সিলেট-ভোলাগঞ্জ-সড়কের সরাসরি পরিদর্শনকালে সড়কের এ করুণ পরিণতি দেখে ‘জটিল ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত’ বলে আখ্যায়িত করেন। উত্তর সিলেটের জনসাধারণ অপেক্ষার প্রহর গুনতে গুনতে অবশেষে একনেকে মহাসড়কে রুপান্তরিত করে সিলেট সদর হতে লালবাগ সালুটিকর পর্যন্ত আরসিসি ঢালাইসহ প্রকল্পআকারে পাশ হয়। পরবর্তীতে সিলেটের মন্ত্রী (অর্থমন্ত্রী) আবুল মাল আব্দুল মুহিতের প্রচেষ্ঠায় সিলেট-সালুটিকর-কোম্পানীগঞ্জ-ভোলাগঞ্জ মহাসড়কটির গুরুত্ব বিবেচনা করে পুরো রাস্তটি আরসিসি ঢালাইর মাধ্যমে প্রাথমিক প্রায় ৫৫০ কোটি টাকার স্থলে বাড়িয়ে প্রায় ৮৫০ কোটি টাকার প্রকল্পের কাজ অনুমোদিত হয়। সরকারি বিধিমোতাবেক কাজের দায়িত্ব নেয় ইন্সপ্রেক্ঠা কোম্পানি, যথারীতি শুরু হয় কাজ ২০১৭ সাল থেকে এ যাবৎ কাজ প্রায় শেষের দিকে।

 

উল্লেখ্য, সড়কটিতে কাজশুরুর কিছুদিন পর নিম্নমানের পাথরসামগ্রী দিয়ে কাজ চলছে বলে অভিযোগ উঠে ইন্সপ্রেক্ঠা কোম্পানীর বিরুদ্ধে। বিভিন্ন সংগঠনের অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় কাজের মান নিয়ে অভিযোগ প্রকাশিত হলেও রহস্যময় কারণে তা ভেস্তে যায়। এরই মধ্যে গত বছর হাইটেক পার্ক সংলগ্ন স্থানে রাস্তার একসাইট দেবে যাওয়ায় কর্তৃপক্ষ সাইনবোর্ড টানিয়ে গাড়ী চলাচল বন্ধ রেখে ফের ঐ সাইডের কাজ সম্পন্ন করে।

 

সম্প্রতি ভোলাগঞ্জ-কোম্পানীগঞ্জ মহাসড়কের ইসলামপুর নামক স্থানে রাস্তার মধ্যখানে দুই তিন স্থানে ফাটল দেখা দেয়ায় জনমনে ক্ষোভ হতাশা বিরাজ করে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয় বিষয়টি। সকলেই প্রবলভাবে ইন্সপ্রেক্ঠা কোম্পানির বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলছেন নিম্নমাণের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহার করায়। স্থানীয় সচেতন মহলের দাবি অনতিবিলন্বে ভোলাগঞ্জ-কোম্পানীগঞ্জ-সালুটিকর-সিলেট বঙ্গবন্ধু গুরুত্বপূর্ণ মহাসড়কে সরকারি তদন্তের মাধ্যমে নিম্নমাণের কাজের স্থান চিহ্নিত করে ফের কাজ সম্পন্নের জোর দাবি জানান। অন্যথায় উত্তর সিলেটের লক্ষাধিক জনসাধারণের আন্দোলনের মাধ্যমে দাবি আদায়ে ঐক্যবদ্ধ হবেন বলে হুশিয়ারী উচ্ছারণ করেন। বিভিন্ন মহল আশ্চার্যান্বিত হয়ে বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নামকরণে সিলেটের এই জনগুরুত্বপূর্ণ মহাসড়কটির কাজের স্থায়িত্ব শুনলাম শতেক বছর কিন্তু পরিতাপের বিষয় পুরো কাজ শেষ হতে না হতেই দেবে যাওয়া, ফেটে যাওয়ার কাহীনি এ যেন রুপকথার কল্পকাহিনির মতো।

 

১নং পশ্চিম ইসলামপুর ইউ/পি চেয়ারম্যান শাহ মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন বলেন- সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সিলেট-ভোলাগঞ্জ-কোম্পানীগঞ্জ মহাসড়কের ইসলামপুর নামক স্থানে রাস্তার ফাটলের খবর পেয়েছি। জনস্বার্থে চেয়ারম্যান হিসেবে আমার দাবি প্রায় হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এই রাস্তায় কাজ শেষ হতে না হতেই ফাটল এর সঠিক কারণ খতিয়ে দেখা দরকার। তিনি বলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও সড়ক ও জনপথ বিভাগের কাছে দাবি জরুরী ভিত্তিতে এই ফাটলের কারণ কি নিম্নমাণের পাথর ব্যবহার নাকি ভারী যানবাহন চলাচল এর জন্য দায়ী তা উদঘাটন অতীব জরুরী। তদন্তসাপেক্ষে তা উদঘাটন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জোর দাবি জানান।

 

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন আচার্যের সাথে প্রতিবেদক ফোনে বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
0Shares
সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম