শ্রীমঙ্গলে স্ত্রীসহ শাশুড়ি হত্যা : আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

প্রকাশিত: ৮:২৭ অপরাহ্ণ, জুন ৭, ২০২০

শ্রীমঙ্গলে স্ত্রীসহ শাশুড়ি হত্যা : আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

শ্রীমঙ্গল সংবাদদাতা
মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলার আশিদ্রোন ইউনিয়নে মা ও মেয়ে হত্যার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে মামলার একমাত্র আসামি আজগর আলী। সে ওই খুনের কথা স্বীকার করে নিয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

 

রবিবার (০৭জুন) মৌলভীবাজার চীফ জুডিশিয়্যাল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হলে সে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

শ্রীমঙ্গল থানার ওসি তদন্ত মো. সোহেল রানা বলেন, মৌলভীবাজার জেলা পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ পিপিএম(বার)-এর সার্বিক তত্ত¡াবধানে ও সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ সার্কেল) মো. আশরাফুজ্জামানের সহযোগিতায় খুনিকে গ্রেপ্তারে তৎপরতা চালায় পুলিশ। খুনের ঘটনার পরদিন শনিবার রাতে আসামি নিজ এলাকা সিন্দুরখান ইউনিয়নের তালতলা থেকে প্রধান আসামি আজগর আলীকে গ্রেফতার করা হয়।

আসামী আজগর আলী খুনের বর্ণনা দিয়ে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে বলে, পারিবারিক বিরোধের জের ধরে সে বৃহস্পতিবার রাতে ঘরের পেছনে বেড়া ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকে পাইপ (চোলায় ফুক দিয়ে আগুন জালানোর লোহার চুঙ্গা) দিয়ে প্রথমে শাশুড়ি জায়েদা বেগমকে ঘুমন্তবস্থায় বুকে আঘাত করে। পরে স্ত্রী ইয়াসমিন আক্তারকে একইভাবে আঘাত করে তাদের মৃত্যু নিশ্চিত করে।

 

খুনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শ্রীমঙ্গল থানার ওসি তদন্ত মো. সোহেল রানা।

 

জানা যায়, আজগর এবং ইয়াসমিন ৭/৮ বছর আগে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তাদের ঘরে দুই সন্তানও রয়েছে। দেড়বছর ধরে তার স্ত্রীকে আটকে রেখেছিলেন শাশুড়ি। আর সন্তানরা তার (আজগর) কাছে থাকতো। এনিয়ে মৌলভীবাজার আদালতে আজগর মামলাও করে। এরই জের ধরে সে ক্ষিপ্ত হয়ে শাশুড়ি ও স্ত্রীকে হত্যা করে।

 

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার (৫ জুন) শ্রীমঙ্গল উপজেলার আশিদ্রোন ইউনিয়নের জামসী এলাকায় একই ঘর থেকে মা ও মেয়ের মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

 

নিহতরা হলেন- মা জায়েদা বেগম ওরফে চিনি বেগম (৫৫) ও মেয়ে ইয়াসমিন আক্তার (২৫)।

সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
0Shares
সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম